পঞ্চম শ্রেণী বাংলা ব্যকরন চিঠিপত্র লিখন

চিঠিপত্র লিখন 

১.   মনে কর, তোমার নাম খসরু। তোমার বড় বোনের বিয়ের দিন ঠিক করা হয়েছে। তোমার প্রিয় বন্ধু হামিদকে এ উপলক্ষ্যে একটি চিঠি লেখ। 

            পূর্ব ঘোপাল, ফেনী

            ২৫ মার্চ, ২০১৭

প্রিয় হামিদ,

শুভেচ্ছা নিও। আশা করি ভালো আছ। আগামী ১০ই এপ্রিল আমার বড় আপার বিয়ের দিন ঠিক হয়েছে। তুমি অবশ্যই আসবে। মা, আপা সবাই তোমাকে আসতে বলেছেন। তুমি কিন্তু ৭ তারিখের মধ্যেই চলে আসবে, কেমন?

আজকের মতো বিদায়। সাবধানে এসো।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      খসরু

২.   মনে কর, তুমি ফরহাদ। গ্রীষ্মের ছুটি কীভাবে কাটাবে তা জানিয়ে তোমার বন্ধু শফিককে একটি চিঠি লেখ।

            বয়রা, খুলনা

            ১০/০৪/২০১৭

প্রিয় শফিক,     

ভালোবাসা নিও। তোমার চিঠি পেয়ে খুব আনন্দিত হয়েছি।

তোমাকে একটা খুশির খবর দিই। এপ্রিল মাসের শেষ সপ্তাহে আমাদের বিদ্যালয়ে গ্রীষ্মের ছুটি শুরু হবে। এবারের ছুটিতে মা-বাবার সাথে আমি সোনারগাঁও ও  পাহাড়পুর যাব। পাঠ্য বই থেকে জেনেছি, এ দুটিই আমাদের দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক স্থান। স্থানগুলোতে গেলে বাংলার প্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে অনেক কিছু জানা যাবে। তুমিও চলনা আমাদের সাথে। খুব মজা হবে।

ভালো থেকো। তোমার মতামত জানিও।

      ইতি

      তোমার শুভার্থী

      ফরহাদ

৩.   মনে কর, তোমার নাম অহনা/অহন। তোমার কলকাতা প্রবাসী এক বন্ধুর নাম বাদল/বৃষ্টি। ভাষা আন্দোলন সম্পর্কে তুমি যা জান তা তোমার বন্ধুকে জানিয়ে একটি চিঠি লেখ।

মহিষাকান্দি, নরসিংদী।

২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭

প্রিয় বাদল,

কেমন আছ? আমি ভালোই আছি। কাল ছিল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। আজ তোমাকে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস জানিয়ে লিখছি।

১৯৫২ সালের ২৬এ জানুয়ারি পূর্ব পাকিস্তানের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমউদ্দিন ঘোষণা দেন যে, উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা। এর প্রতিবাদে ফেটে পড়ে ছাত্রসমাজ। ২১এ ফেব্রুয়ারির দিন স্লোগানে স্লোগানে রাজপথ উত্তাল হয়ে ওঠে। সরকারের জারি করা ১৪৪ ধারার পরোয়া না করেই এগিয়ে যায় ছাত্র-জনতা। পুলিশের গুলিতে রফিক, বরকত, জব্বারসহ আরও অনেকে শহিদ হন। অবশেষে ভাষাশহিদদের জীবনের বিনিময়ে আমরা পাই মাতৃভাষা বাংলায় কথা বলার অধিকার। ভাষাশহিদরা আমাদের গর্ব।

তোমার বাবা-মাকে আমার সালাম জানিও। আজ বিদায় নিচ্ছি।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      অহনা

৪.   মনে কর, তোমার নাম চয়ন/চয়নিকা। তোমার ছোট ভাইয়ের নাম অয়ন। ভ্রমণের আনন্দের কথা জানিয়ে তোমার ছোট ভাইকে একটি পত্র লেখ।

মিরপুর, ঢাকা।

০৭/০১/২০১৭

প্রিয় অয়ন,

কেমন আছ? বাড়ির সবাই ভালো আছে?

গত সপ্তাহে স্কুল থেকে আমাদের শিক্ষাসফরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সেই সুযোগে আমার সোনারগাঁও ভ্রমণও হয়ে গেল। কী যে মজা হলো না! যে কোনো জায়গায় বেড়াতে গেলেই আমার দারুন আনন্দ হয়। অনেক নতুন কিছু জানতে পারি। স্যার আমাদের বলেছেন, ভ্রমণের মাধ্যমে মানুষের অভিজ্ঞতা বাড়ে। মন বড় হয়। এ কথা শুনে আমার ভ্রমণের আগ্রহ আরও বেড়ে গেছে।

সোনারগাঁও গিয়ে অনেক ছবি তুলেছি। বাড়ি এসে তোমাকে দেখাব। ভালো থেকো। মন দিয়ে পড়াশোনা করো।

      ইতি

      তোমার বড় ভাই

      চয়ন

৫.   মনে কর, তোমার নাম সামির/সামিরা। তোমার বন্ধুর নাম মামুন/মুনমুন। অহংকার করার কুফল সম্পর্কে জানিয়ে তোমার বন্ধুকে একটি চিঠি লেখ।

      করিমগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ

২০/০৬/২০১৭

প্রিয় মুনমুন,     

গত সপ্তাহে তোমার চিঠি পেয়েছি। চিঠিটি পড়ে খুব ভালো লাগল।

গতকাল বাবা আমাকে একটা মজার গল্প শুনিয়েছেন। গল্পের মূলকথা হলো- অহংকার করা ভালো নয়। অহংকারের কারণে মানুষ নিজেই নিজের পতন ডেকে আনে। তাছাড়া অহংকারের কারণে মানুষে মানুষে ঝগড়া-বিবাদ সৃষ্টি হয়। ফলে সমাজের শান্তি-শৃঙ্খলা নষ্ট হয়। তাই অহংকার করা থেকে আমাদের বিরত থাকতে হবে।

আজ বিদায় নিচ্ছি। ভালো থেকো।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      সামির

৬.   মনে কর, তোমার নাম জামান/জেসমিন। শব্দদূষণ সম্পর্কে তোমার ছোট বোনকে সচেতন করে একটি পত্র লেখ। ধর, তোমার ছোট বোনের নাম আঁখি।

      সিদ্ধেশ্বরী, ঢাকা

প্রিয় আঁখি, ২৮/০৪/২০১৭

কী খবর তোমার? বাড়ির সবাই ভালো আছে তো? আমি বেশি ভালো নেই। শব্দদূষণের জ্বালায় আমি অতিষ্ঠ।

স্কুলে যাওয়ার পথে প্রতিদিন হাজারো শব্দে আমার কান ঝালাপালা হয়ে যায়। গাড়ির তীব্র হর্ন, ফেরিঅলার হাঁকডাক, মানুষের হৈচৈ ইত্যাদির কারণে খুব বিরক্ত লাগে। আমাদের বিজ্ঞানের স্যার বলেছেন, শব্দদূষণের কারণে মানুষের নানারকম শারীরিক ও মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। বিশেষ করে শিশুদের ওপর খুব খারাপ প্রভাব পড়ে। তাই শব্দদূষণ যাতে না ঘটে এ ব্যাপারে আমাদের সাবধান থাকা উচিত। তুমি বাসায় খুব জোরে শব্দ করে টিভি বা সিডি চালাবে না। ক্লাসরুমে হৈচৈ করবে না।

আজ এখানেই বিদায়। গরমের ছুটিতে বাড়ি আসছি।

      ইতি

      তোমার বড় ভাই

      জামান

৭.   মনে কর, তোমার নাম রাশেদ/রাশেদা। তুমি একটি বই পড়ে বীরশ্রেষ্ঠদের সম্পর্কে জানতে পেরেছ। ধর, তোমার বন্ধুর নাম রানা/রানু। তোমার বন্ধুকে একজন বীরশ্রেষ্ঠর কথা জানিয়ে একটি পত্র লেখ।   

যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

১৮/০৪/২০১৭

প্রিয় বন্ধু রানা,

কী খবর তোমার? অনেক দিন হলো কোনো খোঁজখবর নেই। গতকাল বীরশ্রেষ্ঠদের নিয়ে লেখা একটি বই পড়ে খুব ভালো লেগেছে। তোমাকে একজন বীরশ্রেষ্ঠর কথা জানিয়ে লিখছি।

বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান বাংলার এক বীর সন্তান। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি পাকিস্তান বিমান বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন। বিমান নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল তাঁর। সেই লক্ষ্যে পাকিস্তানের মাশরুর বিমান ঘাঁটি থেকে টি-৩৩ বিমান নিয়ে রওনা দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু পাকিস্তানি সহবৈমানিক মিনহাজ তাঁকে বাধা দিলে বিমানটি দুর্ঘটনার শিকার হয়। এক পর্যায়ে সেটি বিধ্বস্ত হলে শহিদ হন মতিউর রহমান। সত্যিই, দেশের জন্য তাঁর এই ত্যাগের কথা ভোলার নয়।

আমি ভালো আছি। শিগগির চিঠি পাঠিও।

      ইতি

      রাশেদ

৮.   মনে কর, তোমার নাম বিকাশ/বৈশাখী। তোমার বন্ধুর নাম রহিম/শশী। তোমার প্রিয় বই সম্পর্কে জানিয়ে বন্ধুর কাছে একটি পত্র লেখ।

উত্তরা, ঢাকা।

১৮/০৭/২০১৭

প্রিয় শশী,

কেমন আছ? আমি ভালো আছি। আজ আমি তোমাকে আমার প্রিয় বইয়ের কথা জানাব।

আমার সবচেয়ে প্রিয় বই হচ্ছে ‘কাকের নাম সাবানি’। বইটির লেখক আনিসুল হক। সাবানি নামের একটি কাকের মজার সব কাণ্ড নিয়ে বইটি লেখা হয়েছে। সাবানির খুব ইচ্ছা সে শিল্পী হবে। এই উদ্দেশ্যে সে ঢাকার দিকে রওনা দেয়। তারপর কত রকমের অভিজ্ঞতা যে তার হয়! সেগুলো পড়ে কখনও হেসে উঠি। কখনো আবার মন খারাপ হয়ে যায়। একবার বইটা নিয়ে বসলে শেষ না করে ওঠার উপায় নেই। আর বইটাতে আছে শেখার মতন অনেক কিছু।

আজ এখানেই শেষ করছি। নতুন কী বই পড়লে জানিও।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      বৈশাখী

৯.   মনে কর, তোমার নাম রাসেল/রাইসা। তুমি তোমার মামার কাছ থেকে বাংলাদেশের তাঁত শিল্প সম্পর্কে অনেক কথা জানতে পেরেছ। সে সম্পর্কে তোমার বন্ধু মন্টু/মন্টিকে জানিয়ে একটি পত্র লেখ।

চরফ্যাশন, ভোলা।

২২/০৩/২০১৭

প্রিয় মন্টি,

কেমন আছ? বাড়ির সবাই ভালো তো?

আমার খবর ভালো। গত সপ্তাহে মামা এসেছিলেন। বাংলাদেশের তাঁত শিল্প সম্পর্কে অনেক কিছু বলেছেন আমাকে। তোমাকে তার থেকে কিছু কথা বলছি।

আসলে তাঁত হচ্ছে এক রকম যন্ত্র। এটি দিয়ে সুতার মাধ্যমে কাপড় তৈরি করা যায়। তাঁতে কাপড় বোনা যার পেশা তাকে বলা হয় তাঁতী। এদেশের মণিপুরী সম্প্রদায় দীর্ঘকাল ধরে তাঁতশিল্পের সাথে জড়িত। এরা তাঁতে শাড়ি, গামছা, ওড়নাসহ অনেক রকম সৌখিন পোশাক-পরিচ্ছদ তৈরি করে।

আজ আর নয়। তোমার ছুটি হবে কবে? ছুটিতে আমাদের বাড়িতে বেড়াতে এসো।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      রাইসা

১০.  মনে কর, তোমার নাম পল্লব/পলি। জন্মভূমির প্রতি ভালোবাসার কথা জানিয়ে তোমার আমেরিকা প্রবাসী বন্ধুকে একটি চিঠি লেখ। ধর, তোমার বন্ধুর নাম ড্যানিয়েল/ডোরি।

ধানমন্ডি, ঢাকা

৫/৪/২০১৭

প্রিয় ড্যানিয়েল,

কেমন আছ বন্ধু? গত চিঠিতে তুমি জন্মভূমি সম্পর্কে আমার অনুভূতির কথা জানতে চেয়েছ। আজ সে কথা জানিয়ে তোমাকে লিখছি।

আমাদের দেশটা অনেক সুন্দর। মন ভোলানো এর প্রকৃতি। সারা দেশে সবুজের ছড়াছড়ি। নদী, পাহাড়, সমুদ্র সবই আছে এদেশে। আর আছে নানা ধরনের মানুষ। এই সবকিছুই আমাকে প্রচণ্ডভাবে আকর্ষণ করে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। ত্রিশ লক্ষ মানুষ সে যুদ্ধে শহিদ হয়েছে। এদেশকে নিয়ে তাই আমাদের অহংকারের শেষ নেই। বাংলাদেশে জন্ম নিতে পেরে আমি গর্বিত।

আজ আর নয়। তোমার দেশের কথা জানিয়ে আমাকে চিঠি দিও।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      পল্লব

১১.  মনে কর, তোমার নাম সেলিম/সালমা। রূপকথার গল্প পড়া বা শোনার আনন্দের কথা জানিয়ে তোমার বন্ধুকে একটি চিঠি লেখ। ধর, তোমার বন্ধুর নাম মামুন/মুনমুন।

চাষাড়া, নারায়ণগঞ্জ।

০১/০৬/২০১৭

প্রিয় মুনমুন,

ছুটি কেমন কাটছে? আমি খুব মজা করছি।

দাদু আমাকে দুইটা রূপকথার গল্পের বই পড়তে দিয়েছেন। এরই মধ্যে একটা পড়ে শেষ করে ফেলেছি। গল্পগুলো দারুন মজার। রাজা আর তাঁর তিন কন্যাকে নিয়ে লেখা একটা গল্প পড়ে খুব ভালো লেগেছে। প্রতিদিন রাতে ঘুমুতে যাওয়ার সময় দাদু আমাকে একটা করে গল্প শোনান। শুনতে শুনতে মনে হয় ইস্! আমি যদি রাজকন্যা হতাম! কিংবা পাতালপুরীর দেশ থেকে একটা বার ঘুরে আসতে পারতাম!

আজকের মতো বিদায়। স্কুল খুললে দেখা হবে।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      সালমা

১২.  মনে কর, তোমার নাম কবির/করবী, তোমার ছোট ভাইয়ের নাম সুমন। সম্প্রতি তুমি তোমার বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ অভিযানে অংশ নিয়েছিলে। সে সম্পর্কে জানিয়ে তোমার ছোট ভাইকে একটি পত্র লেখ।

মাছিমপুর, নরসিংদী।

০৭/০৮/২০১৭

স্নেহের সুমন,    

কেমন আছ? মা-বাবা কেমন আছেন?   

গত সপ্তাহে আমাদের বিদ্যালয়ে বৃক্ষরোপণ অভিযান হয়েছিল। শিক্ষকবৃন্দ ও ছাত্রছাত্রীদের অংশগ্রহণে খুব আনন্দমুখর পরিবেশে দিনটি উদ্যাপিত হয়। আমরা আমাদের বিদ্যালয়ের মাঠের চারপাশে এবং বাগানে অনেকগুলো চারাগাছ লাগিয়েছি। কাজটি করে খুব ভালো লেগেছে। গাছ কিন্তু আমাদের জন্য খুবই উপকারী। গাছ না থাকলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে। তাই আমাদের বেশি বেশি গাছ লাগানো উচিত। তুমিও বাড়ির আশেপাশে কিছু কিছু গাছ লাগাতে পার।

তোমার জন্য খুব সুন্দর একটা বই কিনে রেখেছি। ছুটিতে বাড়ি এলে তোমাকে দেব। ভালো থেকো ছোট ভাইয়া।

      ইতি

      তোমার বোন

      করবী

১৩. মনে কর, তোমার নাম সাকিব/সালমা। তোমার বন্ধুর নাম অয়ন/আয়না। সম্প্রতি তুমি একটি স্থান থেকে বেড়িয়ে এসেছ। সেই ভ্রমণের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে তোমার বন্ধুকে একটি পত্র লেখ।

মালিবাগ, ঢাকা।

১৭/০২/২০১৭

প্রিয় অয়ন,

শুভেচ্ছা নিও। আশা করি ভালো আছ।

গত সপ্তাহে বাবা-মা’র সাথে সেন্টমার্টিন থেকে ঘুরে এসেছি। দারুন মজা হয়েছে। ঢাকা থেকে ট্রেনে চড়ে প্রথমে গিয়েছি চট্টগ্রাম। সেখান থেকে বাসে করে টেকনাফ। তারপর জাহাজে সেন্টমার্টিন পৌঁছেছি। সেন্টমার্টিনের সৌন্দর্য বলে বোঝানোর মতো না। সাগরের স্বচ্ছ নীল পানি, রাতের আকাশে হাজার তারার মেলা, সৈকতে ঘুরে বেড়ানো নানা রঙের কাঁকড়া, সূর্যোদয়ের দৃশ্য ইত্যাদি দেখে মুগ্ধ হয়ে গেছি। সেন্টমার্টিনের অদূরেই আছে ছেঁড়াদ্বীপ। নৌকায় চড়ে সেখানেও গিয়েছি। পরদিন বাসে চড়ে সরাসরি ঢাকায় ফিরেছি। সব মিলিয়ে সেন্টমার্টিন ভ্রমণের স্মৃতি ভোলার মতো নয়।

আজ বিদায় নিচ্ছি। তোমার কালো বিড়ালটার কী খবর? ভালো থেকো।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      সাকিব

১৪.  মনে কর, তোমার নাম সালাম/সালমা। তোমার বন্ধুর নাম রহিম/রহিমা। তোমার প্রিয় লেখক সম্পর্কে জানিয়ে তোমার বন্ধুকে একটি পত্র লেখ।

রাঙ্গুনিয়া, চট্টগ্রাম।

প্রিয় রহিমা, ২৪/০৩/২০১৭

শুভেচ্ছা নিও। চাচা-চাচি কেমন আছেন? আমরা সবাই ভালো আছি। আজ আমি তোমাকে বলব আমার প্রিয় লেখকের কথা।

আমার প্রিয় লেখকের নাম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তাঁকে বাংলা ভাষার  শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। অনেক গুণী শিল্পী ছিলেন তিনি। গল্প, কবিতা, উপন্যাস, নাটক, গান সব কিছুই লিখেছেন তিনি। এশীয়দের মধ্যে রবীন্দ্রনাথই প্রথম সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। শিশুদের জন্যেও তাঁর অনেক লেখা রয়েছে। সেগুলো পড়লে যে কারও ভালো লাগার কথা। তাঁর লেখাগুলো আমাকে খুবই আকর্ষণ করে।

আজ আর নয়। তুমি কার লেখা পড়তে ভালোবাস? চিঠি লিখে জানিও।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      সালমা

১৫.  মনে কর, তোমার নাম পুলক/পালকি। তোমার বন্ধুর নাম হাসান/হাসিনা। একজন শহীদ বুদ্ধিজীবী সম্পর্কে জানিয়ে তোমার বন্ধুকে একটি পত্র লেখ।

নালিতাবাড়ী, শেরপুর।

১২/১০/২০১৭

প্রিয় হাসান,

শুভেচ্ছা নিও। নতুন বইটা পড়ে কেমন লাগছে?

গতকাল একটা বই থেকে বাংলাদেশের একজন শহীদ বুদ্ধিজীবীর কথা জানতে পারলাম। তাঁর নাম ড. গোবিন্দচন্দ্র দেব। তিনি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিখ্যাত একজন শিক্ষক। ছাত্রছাত্রীদের দর্শন শাস্ত্র পড়াতেন তিনি। মানুষ হিসেবে ছিলেন অত্যন্ত সহজ সরল এবং নিরহংকার। ১৯৭১ সালে ২৫শে মার্চের ভয়াল রাতে পাক হানাদাররা মহান এই শিক্ষককে নিজ বাড়িতেই হত্যা করে। দেশ ও মাতৃভাষার জন্য তাঁর মতো দেশের এমন অনেক শ্রেষ্ঠ সন্তান প্রাণ দিয়েছেন।

আজ এখানেই শেষ করছি। নতুন কোনো বই পেলে জানিও।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      পালকি

১৬.  মনে কর, তোমার নাম হাসনা/সেলিম। তোমার ছোট ভাইয়ের নাম আকাশ। স্বাধীনতা দিবস কীভাবে উদ্যাপন করেছ সে সম্পর্কে জানিয়ে তাকে একটি পত্র লেখ।

সাভার, ঢাকা।

২৯/০৩/২০১৭

আদরের আকাশ,

কেমন আছ? বাড়ির সবাই ভালো তো?  পুষি কত বড় হলো?

২৬ তারিখ ছিল আমাদের মহান স্বাধীনতা দিবস। নানা রকম অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে বিদ্যালয়ের সবাই মিলে এ দিবসটি উদ্যাপন করেছি। সকাল বেলা বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আমাদের নিয়ে যাওয়া হয় সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে। সেখানে আমরা ফুল দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। বিকেলে বিদ্যালয়ে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেখানে ছাত্রছাত্রীরা আবৃত্তি, গান, নাচ, ছোট নাটিকা ইত্যাদি উপস্থাপন করে। দিনটি উপলক্ষ্যে আমরা পুরো বিদ্যালয় কাগজের পতাকা দিয়ে সাজিয়েছিলাম। দেখতে খুব সুন্দর লাগছিল। সব মিলিয়ে খুব আনন্দময় একটি দিন কেটেছে।

আজ আর নয়, গরমের ছুটিতে বাড়ি আসছি।

      ইতি

      তোমার বড় বোন

      হাসনা

১৭.  মনে কর, তোমার নাম অণু/অমল। তোমার বিদ্যালয়ের নাম ভাটিকাশর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তোমার বিদ্যালয়ে একটি চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। তুমি তোমার গ্রামের/শহরের বন্ধুকে চিত্র প্রদর্শনী দেখার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি লেখ।

ডেমরা, ঢাকা।

২৭/০৪/২০১৭

প্রিয় দোলা,

কেমন আছ? আমার খবর ভালো। আজ তোমাকে একটা অনুষ্ঠানে আসার আমন্ত্রণ জানাতে লিখছি।

আগামী শুক্রবার আমাদের স্কুলে একটি চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। এখানে জয়নুল আবেদীন, কামরুল ইসলাম, হাশেম খানসহ বাংলাদেশের বিখ্যাত অনেক চিত্রকরদের কিছু ছবি প্রদর্শিত হবে। সেই সাথে থাকবে ছাত্রছাত্রীদের আঁকা ছবিও। শুনে খুশি হবে যে, আমার আঁকা দুটি ছবিও প্রদর্শনীতে স্থান পেতে যাচ্ছে। আমার তো খুব খুশি লাগছে। তুমি শুক্রবার সকাল দশটার মধ্যে আমাদের স্কুলে চলে আসবে।

আজ আর নয়। তোমার গানের ক্লাস কেমন চলছে? সময়মতো চলে এসো কিন্তু। কেমন?

      ইতি

      তেমার বন্ধু

      অণু

১৮.  মনে কর, তুমি আশিক/আবিদা। তোমার ঠিকানা ২১, পাদ্রী মিশন রোড, ময়মনসিংহ। তোমার একটি পোষা প্রাণী আছে। প্রাণীটির সাথে তোমার কীরূপ সম্পর্ক তা জানিয়ে তোমার বন্ধুর কাছে একটি চিঠি লেখ।  

      ২১ পাদ্রী মিশন রোড, ময়মনসিংহ

      ১২/০৭/২০১৭

প্রিয় রিমন,

কেমন আছ তুমি? আমি ভালো। আজ তোমাকে বলব মিনির কথা। মিনি হচ্ছে আমার পোষা বিড়াল। এবারের জন্মদিনে ছোট চাচ্চু আমাকে বিড়ালটা উপহার দিয়েছে। কি যে সুন্দর বিড়ালটা! একদম ছোট বাচ্চার মতো। এই কদিনেই আমার সাথে ওর দারুন ভাব হয়ে গিয়েছে। মিনি সারাক্ষণই আমার কাছে কাছে থাকে। আমার সাথে খেলে। পড়ার সময় মা ওকে আমার কাছ থেকে দূরে রাখে। তখন ও মিঁউ মিঁউ করে আমাকে ডাকতে থাকে। আবার ছাড়া পাওয়া মাত্রই দৌড়ে এসে আমার কোলে চড়ে বসে। বাসার অন্যরাও মিনিকে খুব আদর করে।

আজ এখানেই শেষ করছি। কতদিন তোমার সাথে দেখা হয় না। একদিন আমাদের বাসায় বেড়াতে এসো। মিনিকে দেখলে তোমার খুব ভালো লাগবে।

      ইতি

      তোমার বন্ধু

      আবিদা

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.