HSC বাংলা ১ম পত্র- গদ্যঃ বিড়াল

পাঠ সহায়ক অংশ

সৃজনশীল পদ্ধতি মুখস্থনির্ভর বিদ্যা নয়, পাঠ্যবই নির্ভর মৌলিক বিদ্যা। তাই অনুশীলন অংশ শুরু করার আগে গল্প/কবিতার শিখন ফল, পাঠ পরিচিতি, লেখক পরিচিতি, উৎস পরিচিতি, বস্তুসংক্ষেপে, নামকরণ, শব্দার্থ ও টীকা ও বানান সতর্কতা সম্পর্কিত গুরত্বপূর্ণ তথ্যাবলি উপস্থাপন করা হয়েছে। এসব বিষয়গুলো জেনে নিলে এ অধ্যায়ের যেকোনো সৃজনশীল ও বহুনির্বাচনি প্রশ্নের উত্তর দেয়া সম্ভব হবে।

  • শিখন ফল  
    • ধনীদের ধন-সম্পদ গড়ে তোলা এবং তাদের কার্পণ্য সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • সমকালীন সমাজে ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য সম্পর্কে অবগত হতে পারবে।
    • গল্পটিতে সমকালীন সমাজব্যবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • দরিদ্র মানুষের জীবনচিত্র ও ধনীর ধনে গরিবের অধিকার সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • ক্ষুধা নিবারণের জন্য চুরি করে খাওয়া যুক্তিসঙ্গত কিনাÑ সে সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • সমকালীন সাহিত্য-সংস্কৃতির ধরন সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • তৎকালীন সাহিত্যে সমাজ-বা¯—বতার প্রতিফলন সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • সমকালীন সাহিত্যে বিভিন্ন উপদেশ, প্রবাদ-প্রবচন ইত্যাদির ব্যবহার ও যৌক্তিকতা সম্পর্কে জানতে পারবে।
    • বিভিন্ন হাস্যরসের মাধ্যমে ন্যায়সঙ্গত কথা ও যুক্তি উপস্থাপন করে মৌলিক সাহিত্য সৃষ্টিতে অনুপ্রাণিত হতে পারবে।
    • অসহায়, দুর্বলের সেবা ও পরোপকার করতে অনুপ্রাণিত হবে।

পাঠ-পরিচিতি

        বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের রসাত্মক ও ব্যঙ্গধর্মী রচনার সংকলন ‘কমলাকান্তে—র দপ্তর’। তিন অংশে বিভক্ত এই গ্রন্থটিতে যে কটি প্রবন্ধ আছে, তার মধ্যে বিশেষভাবে উলে­খযোগ্য রচনা ‘বিড়াল’। একদিন কমলাকান্ত— নেশায় বুঁদ হয়ে ওয়াটারলু যুদ্ধ নিয়ে ভাবছিলেন। এমন সময় একটা বিড়াল এসে কমলাকান্তে—র জন্য রাখা দুধটুকু খেয়ে ফেলে। ঘটনাটা বোঝার পর তিনি লাঠি দিয়ে বিড়ালটিকে মারতে উদ্যত হন। তখন কমলাকান্ত— ও বিড়ালটির মধ্যে কাল্পনিক কথোপকথন চলতে থাকে। এর প্রথম অংশ নিখাদ হাস্যরসাত্মক, পরের অংশ গূঢ়ার্থে সন্নিহিত।

        বিড়ালের কণ্ঠে পৃথিবীর সকল বঞ্চিত, নিষ্পেষিত, দলিতের ক্ষোভ-প্রতিবাদ-মর্মবেদনা যুক্তিগ্রাহ্য সাম্যতাত্ত্বিক সৌকর্যে উচ্চারিত হতে থাকে, “আমি চোর বটে, কিন্তু আমি কি সাধ করিয়া চোর হইয়াছি? খাইতে পাইলে কে চোর হয়? দেখ, যাঁহারা বড় বড় সাধু, চোরের নামে শিহরিয়া উঠেন, তাঁহারা অনেকে চোর অপেক্ষাও অধার্মিক।” মাছের কাঁটা, পাতের ভাত যা দিয়ে ইচ্ছে করলেই বিড়ালের ক্ষিধে দূর করা যায়,  লোকজন তা না করে সেই উচ্ছিষ্ট খাবার নর্দমায় ফেলে দেয়, … যে  ক্ষুধার্ত নয়, তাকেই বেশি করে খাওয়াতে চায়,  ক্ষুধাকাতর-শ্রীহীনদের প্রতি ফিরেও তাকায় না, এমন ঘোরতর অভিযোগ আনে বিড়ালটি। 

        বিড়ালের ‘সোশিয়ালিস্টিক’, ‘সুবিচারিক’, ‘সুতার্কিক’ কথা শুনে বিস্মিত ও যুক্তিতে পর্যুদ¯— কমলাকান্তে—র মনে পড়ে আত্মরক্ষামূলক শে­ষাত্মক বাণী “বিজ্ঞ লোকের মত এই যে, যখন বিচারে পরা¯— হইবে, তখন গম্ভীরভাবে উপদেশ প্রদান করিবে” এবং তিনি সে-রকম কৌশলের আশ্রয় নেন। সাম্যবাদবিমুখ, ইংরেজশাসিত ভারতবর্ষের একজন সরকারি কমকর্তা হয়েও, বঙ্কিমচন্দ্র একটা বিড়ালের মুখ দিয়ে শোষক-শোষিত, ধনী-দরিদ্র, সাধু-চোরের অধিকারবিষয়ক সংগ্রামের কথা কী শে­ষাত্মক, যুক্তিনিষ্ঠ ও সাবলীল ভাষায় উপস্থাপন করেছেন তা এ প্রবন্ধ পাঠ করে উপলব্ধি করা যায়।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.