আমার পণ বাংলা বই ৩য় শ্রেনী

আমার পণ

মদনমোহন তর্কালঙ্কার

কবি পরিচিতি

নাম    :         মদনমোহন তর্কালঙ্কার। 

জন্ম   :         ১৮১৭ সালে, পশ্চিমবঙ্গের নদীয়ায়।

মৃত্যু   :         ১৮৫৮ সালে, কলকাতায়। 

উল্লেখযোগ্য শিশুবিষয়ক গ্রন্থ      :         শিশুশিক্ষা। 

কবিতাটি পড়ে জানতে পারব

        ভালো মানুষ হওয়ার প্রতিজ্ঞার কথা

        গুরুজনদের শ্রদ্ধা করার বিষয়ে

        সবার সাথে মিলেমিশে থাকার বিষয়ে

        পাঠের প্রতি যত্নবান হওয়ার কথা

        সবার সাথে সুন্দর আচরণ করার কথা

        সুন্দর জীবন গঠনের উপায়

        কবিতাটির মূলভাব জেনে নিই

কবিতাটিতে ভালো হয়ে চলার ইচ্ছা প্রকাশিত হয়েছে। আমরা গুরুজনদের আদেশ-নিষেধ মেনে চলব। সবার সাথে মিলেমিশে থাকব। পড়াশোনায় অবহেলা করব না। মিথ্যা বলা, লোভ করা, দায়িত্বে অবহেলা, ঝগড়া করা ইত্যাদি মন্দ কাজ থেকে বিরত থাকব। তাহলেই আমরা ভালো মানুষ হয়ে উঠব।

        বানানগুলো লক্ষ করি

গুরুজন, সুখি, ফাঁকি, ঝগড়া, সাবধান, সৎ।

 অনুশীলনীর প্রশ্ন উত্তর

১.       শব্দগুলো পাঠ থেকে খুঁজে বের করি। অর্থ বলি।

গুরুজন       পাঠ    হেলা     আদেশ

ফাঁকি           কভু     সামলিয়ে

উত্তর :

গুরুজন       –        সম্মানীয় ব্যক্তি।

পাঠ              –        পড়া।

হেলা             –        অবহেলা।

আদেশ         –        হুকুম। 

ফাঁকি           –        কাজে অবহেলা।

কভু              –        কখনো।

সামলিয়ে       –        এড়িয়ে।

২.      ঘরের ভিতরের শব্দগুলো খালি জায়গায় বসিয়ে বাক্য তৈরি করি।

           কভু            পাঠ             হেলা            আদেশ          

            সামলিয়ে             গুরুজন      ফাঁকি

উত্তর :

ক)      বড়দের  আদেশ  মেনে চলা উচিত।

খ)      আমরা  পাঠ  শেষ করে খেলতে যাই।

গ)      কাজে  ফাঁকি  দেওয়া উচিত নয়।

ঘ)       কভু  মিথ্যা বলব না।

ঙ)      মা বাবা শিক্ষক আমাদের  গুরুজন

চ)       কাউকে  হেলা  করব না।

ছ)      লোভ  সামলিয়ে  যেন চলতে পারি।

৩.      ঠিক উত্তরটি বাছাই করে বলি লিখি।

          ক)      কবিতাটি থেকে আমরা কী শিখলাম?

          ১.       সবাই যেন একসঙ্গে সুখে বাস করতে পারি।

          ২.      সবাই মিলেমিশে সৎ জীবন কাটাতে পারি। 

          ৩.      সবাই যেন সবাইকে ভালোবাসতে পারি।

          ৪.      সবাই সাবধানে সুখে জীবন কাটাতে পারি। 

          উত্তর : ক) ২. সবাই মিলেমিশে সৎ জীবন কাটাতে পারি।

৪.      মুখে মুখে উত্তর বলি লিখি।

ক)     সারাদিন আমি কীভাবে চলব?

          উত্তর : সারাদিন আমি ভালো হয়ে চলব।

খ)      কারা গুরুজন?

          উত্তর : বয়সে যাঁরা বড় ও সম্মানের যোগ্য তাঁরাই আমাদের গুরুজন। যেমন : মা-বাবা, বড় ভাই-বোন, শিক্ষক-শিক্ষিকা।

গ)      পড়ার সময় আমি কী করব?

          উত্তর : পড়ার সময় আমি মন দিয়ে পড়ব। পড়ায় কোনো অবহেলা করব না।

)       কোন ধরনের কথা আমি বলব না?

          উত্তর : আমি কখনও মিথ্যা কথা বলব না।

ঙ)      কাদের আমরা ভালোবাসব?

          উত্তর : ভাই-বোনসহ সকলকে আমরা ভালোবাসব।

চ)       অন্যের দুঃখে আমরা কী করব?

          উত্তর : অন্যের দুঃখে আমরা সুখি হব না। অন্যের দুঃখে দুঃখী হয়ে তার দুঃখ দূর করতে চেষ্টা করব।

৫.      ডান দিকের যে কথাটি বাম দিকের কথার সাথে মেলে তা পড়ি লিখি।

আদেশ মেনে চলি           গুরুজনদের/ভালো ছেলেদের

ভালোবাসি            ভালো ছেলেদের/সবাইকে

কাজ করি             মনে মনে/ভালো মনে

পাঠের সময়                   করি খেলা/নাহি হেলা

সামলে রাখি          দুঃখ/লোভ

          উত্তর : আদেশ মেনে চলি – গুরুজনদের।

                                 ভালোবাসি – সবাইকে।

                                 কাজ করি – ভালো মনে।

                                 পাঠের সময় – নাহি হেলা।

                                  সামলে রাখি – লোভ।

৬.      গুরুজন সম্পর্কে জানি এবং তাঁদের সম্পর্কে একটি করে বাক্য লিখি।

          উত্তর :

বাবা   মা      বাবা-মা আমাদের সবচেয়ে আপনজন।

দাদা   দাদি   দাদা-দাদির জন্য আমরা দোয়া করব।

নানা   নানি   নানা-নানির অনেক বয়স হয়েছে।

চাচা   চাচি   চাচা-চাচি আমাদের সাথেই থাকেন।

মামা  মামি  মামা-মামি ঈদে আমাদের বাড়ি আসবেন।

শিক্ষক        শিক্ষক আমাদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলেন।

৭.      নিচের বাক্যগুলোর কাজ বোঝানো শব্দগুলো লিখি এবং তা দিয়ে বাক্য তৈরি করি।

উত্তর :

আমি সকালে ঘুম থেকে উঠি।                ওঠা

                                             সকালে ওঠা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

কথাটা মনে মনে বললাম।                     বলা

                                            সবার সত্য কথা বলা উচিত।

ভালো হয়ে চলি                                     চলা

                                            সাবধানে পথ চলা উচিত।

ভালো মনে কাজ করি                         করা

                                             পাঠে হেলা করা উচিত নয়।

সকলেরে যেন ভালোবাসি                ভালোবাসা

                                           ভাই-বোনদের ভালোবাসা দিতে হবে।

একসাথে থাকি                                     থাকা

                                           সময়মতো ক্লাসে হাজির থাকা চাই।

কারো দুঃখে সুখি যেন না হই                  হওয়া

                                            বড় মানুষ হওয়া কঠিন কাজ।

৮.      কবিতাটি মুখস্থ বলি লিখি।

উত্তর : পাঠ্য বই থেকে কবির নামসহ কবিতাটি মুখস্থ কর। এবার না দেখে কবিতাটি বল এবং লেখ।

৯.      আমার ইচ্ছে সম্পর্কে তিনটি বাক্য লিখি।

উত্তর : আমার ইচ্ছে সম্পর্কে তিনটি বাক্য-

১)       আমার ইচ্ছে করে পাখির মতো ডানা মেলে উড়তে।

২)       আমি চাই সব শিশু যেন স্কুলে যেতে পারে ।

৩)      আমি বড় হয়ে ভালো মানুষ হব।

 অতিরিক্ত প্রশ্ন উত্তর

সঠিক উত্তরটি লেখ।

১.       সকালে উঠে খোকা মনে মনে কী ভাবে?     

          ক       সারাদিন খেলাধুলা করবে   

          খ       সারাদিন ভালো হয়ে চলবে 

          গ       সারাদিন পড়াশোনা করবে

          ঘ       সারাদিন ঘুমাবে 

২.      অন্যের কী দেখে সুখি হওয়া ঠিক নয়?        

          ক       আনন্দ         খ       সুখ

          গ       দুঃখ    ঘ       সাফল্য

৩.      কাদের আদেশ ভালো মনে পালন করতে হবে?    

          ক       গুরুজনদের খ       আত্মীয়দের

          গ       ভাই-বোনদের         ঘ       বন্ধুদের

        নিচের শব্দগুলো দিয়ে বাক্য রচনা কর।

          গুরুজন, ফাঁকি, হেলা, সাবধান।

উত্তর :

শব্দ              বাক্য

গুরুজন       –        সবসময় গুরুজনের আদেশ মেনে চলব।

ফাঁকি            –        পড়াশোনায় ফাঁকি দিলে উন্নতি হবে না।

হেলা            –        কোনো কাজে হেলা করব না।

সাবধান         –        রাস্তা পারাপারে সাবধান থাকতে হয়।

ডান পাশের বাক্যাংশের সাথে বাম পাশের বাক্যাংশের মিল কর।

খেলা করি               মিছে কথা

কভু না বলি             মিলেমিশে

একসাথে থাকি        ভালো ছেলেদের সাথে

                               পাঠের সময়

উত্তর :খেলা করি – ভালো ছেলেদের সাথে।

          কভু না বলি – মিছে কথা।

          একসাথে থাকি – মিলেমিশে।

নিচের বানানগুলো শুদ্ধ করে লেখ।

          গুরূজন, শাবধান, ফাকি, জগড়া।

          উত্তর : ভুল বানান              শুদ্ধ বানান

                   গুরূজন        –        গুরুজন

                   শাবধান        –        সাবধান

                   ফাকি           –        ফাঁকি

                   জগড়া          –        ঝগড়া

নিচের কোনটি কোন পদ লেখ।

          সকাল, সুখী, ভালো, মুখ, খেলি।

          উত্তর : শব্দ             পদ

                   সকাল –        বিশেষ্য

                   সুখী    –        বিশেষণ

                   ভালো –        বিশেষণ

                   মুখ     –        বিশেষ্য

                   খেলি   –        ক্রিয়া

        নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লেখ।

ক)     গুরুজনরা কোনো আদেশ করলে আমরা কী করব?

          উত্তর : গুরুজনরা আমাদের কাছে সম্মানীয় ব্যক্তি। তাঁরা কোনো আদেশ করলে আমরা ভালো মনে তা পালন করব।

খ)      আমরা কাদের সাথে খেলা করব?

          উত্তর : আমরা ভালো ছেলেদের সাথে মিলেমিশে খেলা করব।

গ)      মন্দ কাজ কোনগুলো?

          উত্তর : পাঠে অবহেলা করা, অন্যের দুঃখে সুখি হওয়া, মিথ্যা কথা বলা, লোভ করা, কাউকে কোনো কিছুতে ফাঁকি দেওয়া, ঝগড়া করা ইত্যাদি হলো মন্দ কাজ। আমরা এ কাজগুলো কখনও করব না।

বুঝিয়ে লেখ।

                   সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি,

                   সারাদিন আমি যেন ভালো হয়ে চলি।

উত্তর : আলোচ্য চরণ দুটি মদনমোহন তর্কালঙ্কার রচিত ‘আমার পণ’ কবিতা থেকে নেওয়া হয়েছে।

এখানে ভালো পথে চলার ইচ্ছা প্রকাশিত হয়েছে।

ভালো পথে চললে, ভালো কাজ করলে সকলে ভালোবাসে। আর ভালো পথে চলার জন্য সকলকেই মনে মনে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হতে হবে। কবি সেই পণই করেছেন।

প্রাথমিক সমাপনী নমুনা প্রশ্ন উত্তর

নিচের কবিতাংশটি পড়ে ১, ২, নম্বর প্রশ্নের উত্তর লেখ।

সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি,

সারাদিন আমি যেন ভালো হয়ে চলি।

আদেশ করেন যাহা মোর গুরুজনে,

আমি যেন সেই কাজ করি ভালো মনে।

ভাইবোন সকলেরে যেন ভালোবাসি,

একসাথে থাকি যেন সবে মিলেমিশি।

ভালো ছেলেদের সাথে মিশে করি খেলা,

পাঠের সময় যেন নাহি করি হেলা।

১.       সঠিক উত্তরটি উত্তরপত্রে লেখ।

১)       আমরা ভাইবোনদের 

          (ক)     শাসন করব

          (খ)     ভালোবাসব

          (গ)     সারাদিন খেলতে বলব

          (ঘ)      খোঁজ-খবর রাখব না

২)      কাদের সাথে মিশে খেলতে হবে?

          (ক)     গুরুজন        (খ)     ছোট্ট ছেলে  

          (গ)     ভালো ছেলে (ঘ)      দুঃখী মানুষ

৩)      বাবা-মা বা শিক্ষক কোনো কাজ করতে বললে আমরা কী করব?

          (ক)     খুশিমনে করব         (খ)     গড়িমসি করব

          (গ)     ইচ্ছে হলে করব       (ঘ)      সাবধানে করব

৪)       আমরা কখন পড়ব?

          (ক)     খেলার সময়           (খ)     খাওয়ার সময়

          (গ)     পড়ার সময়            (ঘ)      সব সময় 

৫)      কবিতাংশে মূলত কী প্রকাশিত হয়েছে?

          (ক)     পড়াশোনার গুরুত্ব 

          (খ)     খেলাধুলার আনন্দ

          (গ)     ভালো হয়ে চলার প্রতিজ্ঞা  

          (ঘ)      সকালে ঘুম থেকে ওঠার কথা  

          উত্তর : ১) (খ) ভালোবাসব; ২) (গ) ভালো ছেলে;          ৩) (ক) খুশিমনে করব; ৪) (গ) পড়ার সময়; ৫) (গ) ভালো হয়ে চলার প্রতিজ্ঞা।

২.      নিচের শব্দগুলোর অর্থ লেখ।

          গুরুজন, পাঠ, হেলা, আদেশ, মোর।

উত্তর c:        শব্দ                  অর্থ

                  গুরুজন     –  সম্মানীয় ব্যক্তি।

                   পাঠ         –    পড়া।

                 হেলা         –     অবহেলা।

              আদেশ        –     হুকুম।

              মোর            –     আমার।

৩.      নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর লেখ।

ক)     ভাইবোনদের সাথে আমরা কেমন আচরণ করব?

          উত্তর : ভাইবোনদের আমরা ভালোবাসব। তাদের সাথে মিলেমিশে থাকব।

খ)      পড়ার সময় আমরা কী করব?

          উত্তর : পড়ার সময় আমরা পড়ব। পড়ার প্রতি অবহেলা করব না।

গ)      ভালো হয়ে চলার তিনটি উপায় লেখ।

          উত্তর : ভালো হয়ে চলার তিনটি উপায় হলো :

১)       গুরুজনদের আদেশ-নিষেধ পালন করতে হবে।

২)       ভাইবোনদের সাথে মিলেমিশে থাকতে হবে।

৩)      পাঠে অবহেলা করা যাবে না।

৪.      কবিতাংশটুকুর মূলভাব লেখ।

উত্তর : ভালো মানুষ হয়ে ওঠার জন্য আমাদের নিয়মিত কিছু ভালো কাজ করার অভ্যাস করতে হবে। আমরা গুরুজনদের শ্রদ্ধা করব ও ভাইবোনদের ভালোবাসব। ভালো ছেলেদের সাথে মিশব। পড়াশোনায় কখনো অবহেলা করব না। এভাবে আমরা সারাদিন ভালো হয়ে চলব।

 পাঠ্য বই বহির্ভূত- যোগ্যতাভিত্তিক

এ অংশে পাঠ্য বই বহির্ভূত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ দেওয়া থাকবে। প্রদত্ত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ পড়ে ৩ ধরনের প্রশ্নের উত্তর করতে হবে। এখানে থাকবে- ৫. বহুনির্বাচনি প্রশ্ন,  ৬. শূন্যস্থান পূরণ ও  ৭. প্রশ্নের উত্তর লিখন। প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর করতে হবে।

পাঠ্য বই বহির্ভূত অনুচ্ছেদ/কবিতাংশ পরীক্ষায় কমন পড়বে না। তাই এটি এখানে দেওয়া হলো না। তবে পরীক্ষার প্রশ্নের পূর্ণাঙ্গ নমুনা (ঋড়ৎসধঃ) বোঝার সুবিধার্থে বইয়ের প্রথম দুটি অধ্যায়ে পাঠ্য বই বহির্ভূত অংশটি সংযোজন করা হয়েছে।

৮.      নিচের যুক্তবর্ণগুলো কোন কোন বর্ণ নিয়ে গঠিত ভেঙে দেখাও এবং প্রতিটি যুক্তবর্ণ দিয়ে একটি করে শব্দ গঠন করে বাক্যে প্রয়োগ দেখাও।

          ঙ্ক, ব্দ, ক্ষ, ক্য, ঙ্গ।

          উত্তর :

ঙ্ক       =        ঙ + ক          –        অঙ্ক

          –        লামিয়া অঙ্কে কাঁচা।

ব্দ       =        ব + দ –        খ্রিষ্টাব্দ

          –        এখন ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দ।

ক্ষ      =        ক + ষ –        ক্ষমা

          –        আমাকে ক্ষমা কর।

ক্য     =        ক + য-ফলা ( ্য )  –        বাক্য

          –        বাক্যটি পড়।

ঙ্গ       =        ঙ + গ –        ভঙ্গ

          –        ওয়াদা ভঙ্গ করো না।

৯.      সঠিক স্থানে বিরামচিহ্ন বসিয়ে অনুচ্ছেদটি আবার লেখ।

          (কবিতার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়)

১০.     বাক্যগুলোতে ক্রিয়াপদের চলিত রূপ লেখ।

          ক)      সকালে উঠিয়া আমি মনে মনে বলি।

          খ)      আদেশ করিয়াছেন গুরুজন।

          গ)      ভালো ছেলেদের সাথে মিশিয়া খেলা করি।

          ঘ)       মিছে কথা কহিব না।

          ঙ)      সাবধানে যেন লোভ সামলাইয়া রাখি।

          উত্তর :

          ক)      সকালে উঠে আমি মনে মনে বলি।

          খ)      আদেশ করেছেন গুরুজন।

          গ)      ভালো ছেলেদের সাথে মিশে খেলা করি।

          ঘ)       মিছে কথা বলব না।

          ঙ)      সাবধানে যেন লোভ সামলিয়ে রাখি।

১১.     নিচের শব্দগুলোর বিপরীত শব্দ লেখ। 

          সকাল, ভালো, একসাথে, সুখী, দিন।

          উত্তর :          শব্দ              বিপরীত শব্দ

                             সকাল    –      সন্ধ্যা

                               ভালো –        মন্দ

একসাথে       –        আলাদা

      সুখী        –        দুঃখী

      দিন        –        রাত

১২.   নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাও।

কিছুতে কাহারে যেন নাহি দিই ফাঁকি।

মিছে কথা কভু যেন নাহি আসে মুখে।

সকালে উঠিয়া এই বলি মনে মনে।

ঝগড়া না করি যেন কভু কারও সনে,

সুখি যেন নাহি হই আর কারও দুখে,

সাবধানে যেন লোভ সামলিয়ে থাকি,

ক)      কবিতার লাইনগুলো সাজিয়ে লেখ।

খ)      কবিতাংশটি কোন কবিতার অংশ?

গ)      কবিতাটির কবির নাম কী?

ঘ)       অন্যের দুঃখে আমরা কী করব?

উত্তর :

ক)      কবিতার লাইনগুলো নিচে সাজিয়ে লেখা হলোÑ

          সুখি যেন নাহি হই আর কারও দুখে,

          মিছে কথা কভু যেন নাহি আসে মুখে।

          সাবধানে যেন লোভ সামলিয়ে থাকি,

          কিছুতে কাহারে যেন নাহি দিই ফাঁকি।

          ঝগড়া না করি যেন কভু কারও সনে,

          সকালে উঠিয়া এই বলি মনে মনে।

খ)      কবিতাংশটি ‘আমার পণ’ কবিতার অংশ।

গ)      কবিতাটির কবির নাম মদনমোহন তর্কালঙ্কার।

ঘ)       অন্যের দুঃখে আমরা সুখি হব না। দুঃখী মানুষকে সাহায্য করার চেষ্টা করব।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.