৯ম-১০ম শ্রেণী বাংলা ব্যকরন নির্মিত অংশঃ ভাব সম্প্রসারণ

কবি-সাহিত্যিকদের লেখায় কখনো কোনো একটি বাক্যে বা কবিতার এক বা একাধিক চরণে গভীর কোনো ভাব নিহিত থাকে। সেই ভাবকে বিস্তারিতভাবে লেখা, বিশ্লেষণ করাকে ভাবসম্প্রসারণ বলে। যে ভাবটি কবিতার চরণে বা বাক্যে প্রচ্ছন্নভাবে থাকে, তাকে নানাভাবে ব্যাখ্যা করতে হয়। সাধারণত সমাজ বা মানবজীবনের মহৎ কোনো আদর্শ বা বৈশিষ্ট্য, নীতি-নৈতিকতা, প্রেরণামূলক কোনো বিষয় যে পাঠে বা বাক্যে বা চরণে থাকে, তার ভাবসম্প্রসারণ করা হয়। ভাবসম্প্রসারণের ক্ষেত্রে রূপকের আড়ালে বা প্রতীকের ভেতর দিয়ে যে বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়, তাকে যুক্তি, উপমা, উদাহরণ ইত্যাদির সাহায্যে বিশ্লেষণ করতে হয়।
ভাবসম্প্রসারণ করার ক্ষেত্রে যেসব দিক বিশেষভাবে খেয়াল রাখা প্রয়োজন :
১. উদ্ধৃত অংশটুকু মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।
২. অন্তর্নিহিত ভাবটি বোঝার চেষ্টা করতে হবে।
৩. অন্তর্নিহিত ভাবটি কোনো উপমা-রূপকের আড়ালে নিহিত আছে কি না, তা চিন্তা করতে হবে।
৪. সহজ-সরলভাবে মূল ভাবটিকে ফুটিয়ে তুলতে হবে।
৫. মূল বক্তব্যকে প্রকাশরূপ দেওয়ার জন্য প্রয়োজনে যুক্তি উপস্থাপন করতে হবে।
৬. বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
৭. বক্তব্য সাধারণত বিশ থেকে পঁচিশ লাইনের মধ্যে প্রকাশ করতে হবে।

আমাদের বাছাইকৃত ৫০ টি ভাব সম্প্রসারণ

পাপকে ঘৃণা কর পাপীকে নয়।
অর্থই অনর্থের মূল।
অর্থসম্পত্তির বিনাশ আছে কিন্তু, জ্ঞানসম্পদ কখনো বিনষ্ট হয় না।
স্বদেশের উপকারে নাই যার মন,কে বলে মানুষ তারে পশু সেই জন।”
কত বড়ো আমি, কহে নকল হীরাটি, তাই তো সন্দেহ করি নহ ঠিক খাঁটি।
দুর্নীতি জাতীয় জীবনে অভিশাপস্বরূপ।
মিথ্যা শুনিনি ভাই, এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোনো মন্দির-কাবা নাই।
প্রাণ থাকলেই প্রাণী হয়, কিন্তু মন না থাকলে মানুষ হয় না।
দন্ডদাতা কাঁদে যবে সমান আঘাতে সর্বশ্রেষ্ঠ সে বিচার।
১০প্রয়োজনে যে মরিতে প্রস্তুত, বাঁচিবার অধিকার তাহারই।
১১প্রয়োজনই উদ্ভাবনের জনক।
১২পরের অনিষ্ট চিন্তা করে সেই জন নিজের অনিষ্ট বীজ করে সে বপন।
১৩ভোগে নয়, ত্যাগেই সুখ।
১৪যে একা সেই সামান্য, যার ঐক্য নাই সে তুচ্ছ।
১৫এ জগতে হায় সে-ই বেশি চায় আছে যার ভূরি ভূরি রাজার হস্ত করে সমস্ত কাঙালের ধন চুরি।
১৬সুশিক্ষিত লোক মাত্রই স্বশিক্ষিত।
১৭স্পষ্টভাষী শত্রু নির্বাক মিত্র অপেক্ষা ভালো।
১৮পথ পথিকের সৃষ্টি করে না, পথিকই পথের সৃষ্টি করে।
১৯যেখানে দেখিবে ছাই উড়াইয়া দেখ তাই পাইলেও পাইতে পার অমূল্য রতন।
২০“শৈবাল দিঘীরে বলে উচ্চ করি শির লিখে রেখে এক ফোঁটা দিলেম শিশির।”
২১রাত যত গভীর হয়, প্রভাত তত নিকটে আসে অথবা, একের শেষান্তে অপরের আবির্ভাব।
২২আলো বলে, অন্ধকার, তুই বড় কালো অন্ধকার বলে, ভাই তাই তুমি আলো।
২৩আত্মশক্তি অর্জনই শিক্ষার উদ্দেশ্য।
২৪অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে তব ঘৃণা তারে যেন তৃণসম দহে।
২৫ সেই ধন্য নরকুলে লোকে যারে নাহি ভুলে মনের মন্দিরে নিত্য সেবে সর্বজন।
২৬বিশ্রাম কাজের অঙ্গ এক সাথে গাঁথা নয়নের অংশ যেন নয়নের পাতা।
২৭সংসার সাগরে দুঃখ তরঙ্গের খেলা আশা তার একমাত্র ভেলা।
২৮উত্তম নিশ্চিন্তে চলে অধমের সাথে তিনিই মধ্যম যিনি চলেন তফাতে।
২৯শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড।
৩০কীর্তিমানের মৃত্যু নেই।
৩১মঙ্গল করিবার শক্তিই ধন, বিলাস ধন নহে।
৩২দ্বার রুদ্ধ করে দিয়ে ভ্রমটাকে রুখি সত্য বলে, আমি তবে কোথা দিয়ে ঢুকি?
৩৩জীবে প্রেম করে যেইজন, সেইজন সেবিছে ঈশ্বর
৩৪গ্রন্থগত বিদ্যা আর পরহস্তে ধন, নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়োজন।
৩৫স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন।
৩৬দুঃখের মতো এত বড় পরশপাথর আর নেই।
৩৭সঙ্গদোষে লোহা ভাসে।
৩৮লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু।
৩৯বিশ্বের যা কিছু মহান সৃষ্টি চির-কল্যাণকর অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
৪০জ্ঞানহীন মানুষ পশুর সমান।
৪১পিতামাতা গুরম্নজনে দেবতুল্য জানি, যতনে মানিয়া চল তাহাদের বাণী।
৪২লাইব্রেরি জাতির সভ্যতা ও উন্নতির মানদন্ড
৪৩নানান দেশের নানান ভাষা বিনা স্বদেশী ভাষা মিটে কি আশা?
৪৪বন্যেরা বনে সুন্দর শিশুরা মাতৃক্রোড়ে।
৪৫সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই।
৪৬চরিত্র মানবজীবনের অমূল্য সম্পদ।
৪৭পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি।
৪৮ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়।
৪৯আপনারে লয়ে বিব্রত রহিতে আসে নাই কেহ অবনী পরে, সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে মোরা পরের তরে।
৫০কাঁটা হেরি ক্ষান্ত কেন কমল তুলিতে দুঃখ বিনা সুখ লাভ হয় কি মহিতে?

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.